মাত্র ১২ টি আম বিক্রি করে নাবালিকার ইনকাম ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা

১২ টি আমের বি’ক্রয় মূল্য উঠলো ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা! না, নিলামে নয়, ১২টি আম মোটা অংকের অর্থ দিয়ে রী’তিমতো এক বালিকার কাছ থেকে কিনে নি’য়েছেন এক ব্যবসায়ী। কারণ, তিনি ওই বালিকাকে সাহায্য করতে চে’য়েছিলেন।

অনলাইনে পড়া’শোনা করার তার শখ এবং স্বপ্নপূরণ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু কোন অনু’দান দিয়ে নয়, রী’তিমতো আমের বিনিময়েই ওই ব্যবসায়ী আমবিক্রেতা এক বালি’কাকে সাহায্য করেছেন। জামশেদপুরের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী তুলসি কু’মারী।

লক’ডাউনে স্কুলে যাওয়া তার বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এখন অন’লাইনই ভরসা। তবে অভাবের সংসারে স্মার্টফোন এবং ইন্টা’রনেটের ব্যবস্থা করা কার্যত স্বপ্ন মাত্র। সেই স্বপ্ন পূরণ করার জন্য দি’নরাত উদয়াস্ত পরিশ্রম করে, রাস্তায় রাস্তায় আম ফেরি করে টাকা জ’মাচ্ছিল তুলসী।

তার ইচ্ছে ছিলো এই টা’কা দিয়েই সে স্মার্টফোন কিনবে। যা দিয়ে তার পড়াশোনা এগ’নো সম্ভব হবে। বিশিষ্ট সংবা’দমাধ্যম তুলসীর এই জীবন সং’গ্রামের কথা তাদের সংবাদ সংস্থায় প্রকাশ করেছিল।

আর সেই সং’বাদ সংস্থা মারফত মুম্বাইয়ের এক ব্যবসায়ী তু’লসী সম্পর্কে জানতে পারেন।‌ এরপর তিনি তুল’সীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তবে তাকে কোনো অনুদান দিয়ে সা’হায্য করতে চাননি তিনি।

আসলে তুলসী কারোর থেকেই অনুদান চায়নি। তাই ১২টি আ’মের বিনিময় ওই ব্যক্তি তুলসীর হাতে তুলে দেন ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা। অর্থাৎ তুলসীর একেকটি আম বিক্রি হয়েছে ১০ হাজা’র টাকায়!

এতগুলি টাকা একসঙ্গে পেয়ে তু’লসীও ভীষণ খুশি। সে কখনো ভাবতেই পারেনি এত সহজেই তার স্মার্টফোন কে’নার টাকা চলে আসবে। একটি ছোট্ট মেয়ের পড়াশোনা যাতে এই’ভাবে টাকার অভাবে বন্ধ না হয়ে যায়, সেই জন্যই এই উদ্যোগ গ্রহণ করেন ওই ব্যবসায়ী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.