ফ্রান্সের ছোট এক শহরের নাম ক’নডম

বিশ্বের বিভিন্ন স্থানের নাম নিয়ে অনেকেই সমা’লোচনা বা আলোচনা করে থাকেন। যে নামগুলো অন্যান্যদের কাছে হা’স্যকর বা ল’জ্জাজ’নক, তা নাকি এলাকাবাসীদের জন্য আবার গর্বের। কথায় আছে, এক দেশের বুলি, অন্য দেশের গালি। ঠিক তেমনটাই।

সম্প্রতি অস্ট্রিয়ার এক গ্রামের নাম পাল্টে ফেলেছে এলাকাবাসীরা। পর্যটকদের হাসি-তামাশা সইতে না পেরে অবশেষে নাম বদলানোর সিদ্ধান্ত নেয় গ্রামবাসীরা। সামনের বছরের শুরুতেই বদলে যাচ্ছে গ্রামটির নাম। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক বিশ্বের কিছু ল’জ্জা’জনক স্থানের নাম সম্পর্কে-

অস্ট্রিয়ার একটি গ্রামের নাম ‘ফা’কিং’। এই নামটি নিয়ে বিশ্বে একন অনেক চর্চা হচ্ছে। এর অধি’বা’সীরা ইন্টা’রনে’ট যু’গ আসার আগে বুঝ’তেই পারে’ননি নামে’র ইং’রেজি ‘অর্থ ভে’বে কে’উ হা’সি-তা’মাশা করতে পারে। তবে গত কয়েক ব’ছর ধরে তা’ই হচ্ছে।

বহু পর্যটক না’ম’ফলকের স’ঙ্গে সেল’ফি তুলে সামা’জিক ‘যোগা’যোগ মাধ্য’মে শে’য়ার করে’ছেন, অনেকে আবার তুলে’ নিয়ে যাচ্ছেন নামফ’লক। অবশেষে তাই নাম বদলানোর সি’দ্ধান্ত নি’য়েছে এলা’কাবাসী। ২০২১ সাল থেকে তাই ‘ফা’কিং’ হয়ে যাবে ‘ফাগিং’৷

নিশ্চয় ভাব’ছেন, মজা’র ছলে বলা হচ্ছে। বিষ’য়টি কিন্তু তা নয়। ফ্রা’ন্সের ছো’ট এক শহরের নাম সত্যিই’ ক’নড’ম। অবাক’ কা’ণ্ড এমন নাম নিয়ে শহ’রবাসীরা নাকি গর্বিত। তাই ১৯৯৫ সালে ক’নডমের জা’দুঘরও খোলা হয়েছে ক’নডম শহরে।

এই শহরটি খুব ভা’লো মানের ব্র্যান্ডি উৎপাদ’নের জন্যও বিখ্যাত। জার্মানির নর্থ রাইন ওয়ে’স্টফে’লিয়া রা’জ্যের একটি জা’য়গার নাম টিটস। ইং’রেজিতে টি’টস শ’ব্দের অর্থ স্ত’ন। ফলে ভি’নদে’শিরা সে’খানে গে’লে হে’সে প্রা’য় লু’টিয়ে পড়েন।

তবে এলাকাবাসী তো জানে’ন জা’র্মান ভাষায় টিটস-এর সের’কম কোনো অর্থ হয় না। তাই ফা’কিংবাসী’দের ম’তো নাম বদলানোর কথা ভাবছেন না তারা। পর্দা’য় ব্যাট’ম্যানের চরি’ত্রটি সবা’ইকেই মু’গ্ধ করে।

আর তাইতো ছো’ট্ট বা’চ্চারাও এখন ব্যাট’ম্যানকে অনু’সরণ করে। তবে জা’নেন কি? তু’রস্কের একটি গ্রামের নাম ব্যা’টম্যান। এমন নামক’রণের কারণ জানা যা’য়নি। তবে ‘নামের কারণে’ই অ’খ্যাত এবং বেশ অ’নুন্নত গ্রামটি’তে প’র্যটকদের ‘ভীড় লে’গেই থাকে।

ইন্টার’নেটের যুগে নর’ওয়ের ‘হে’ল’ গ্রামে’ও ইংরেজি ভাষা’ভাষী পর্য’টকদের ভীড় ভীষণ বেড়ে’ছে। নর’ওয়ের নর’কে যেতে এখন বিশ্বের অনেকেই আগ্রহী। এই নরক অবশ্য ভিন্ন, যেখানে মিলবে প্রাকৃতিক স্নিগ্ধতা।

তবে কেন স্থানটির নাম হেল হলো তা জানা নেই কারো। যারাই সেখানে যান ‘হে’ল’ লে’খা নামফ’লকের সঙ্গে ছবি তুলে সেই ছবি সামাজিক যোগা’যোগ মাধ্যমে শেয়ার করতে ভুলেন না। কেউ কেউ স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে নামফলকটা তুলে বাড়িতেও নিয়ে আসেন।

বেলজিয়ামের গ্রাম’টির ‘নাম ‘সিলি’ হ’লেও বেলজি’য়ামের জাতীয় ভা’ষা ‘ডাচ, ফ্রে’ঞ্চ বা জার্মানে কিন্তু সিলি’ অর্থ বোকা নয়।’ সিলি নদীর নাম থেকেই গ্রামটি নামকরণ করা হয়েছে। তবে ইংরেজি ভাষাভাষীরা তো সেটি বু’ঝে না।

তারা সেখানে গেলে ‘সিলি’ লেখা নামফলকের সঙ্গে একটা সেলফি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করার কথা কখনোই ভোলেন না। যুক্তরাষ্ট্রের ওরাগন রাজ্যের সুন্দর একটা জায়গার নাম ‘বোরিং’, অর্থাৎ ‘বিরক্তিকর’ কেন রাখা হয়েছে তা জানে না কেউ।

এর কাছা’কাছি ‘অর্থের নাম আ’রো আ’ছে। স্কটল্যান্ডে’র একটা গ্রামের নাম ‘ডা’ল’। আর অস্ট্রে’লিয়াতে আ’ছে ‘ব্লা’ন্ড’ না’মক একটি স্থান। প্রতি বছ’রের ৯ আ’গস্ট তিন দেশের এই তিনটি স্থান একযোগে ‘ব্লান্ড, ডাল অ্যান্ড বোরিং ডে’ উদ’যাপন করে।

সূত্র: ডয়েচেভেলে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *