মা এখন শাশুড়ি! ২৩ বছরে পাল্টে গেল সাবিত্রী-ময়নার সম্পর্কের সমীকরণ

সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায় (Sabitri Chatterjee) স্বর্ণযুগের কিংবদন্তী। বহু বসন্ত পেরিয়েও এখনও সমানতালে কাজ করেছেন অভিনেত্রী। তাঁর সঙ্গে কাজ করার সৌভাগ্য যাঁদের হয়েছে, ময়না মুখার্জি (Moyna Mukherjee) তাঁদের মধ্যে অন্যতম।

এই মুহূর্তে ‘ধুলোকণা’ ধারাবাহিকে সাবিত্রীর সঙ্গে কাজ করছেন ময়না। এর আগেও তিনি সাবিত্রীর সঙ্গে কাজ করেছেন। 1998 সালে দূরদর্শনে সাহিত্যিক গজেন্দ্রকুমার মিত্র (Gajendrakumar Mitra)-র উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত সিরিয়াল ‘পৌষ ফাগুনের পালা’-য় সাবিত্রী শ‍্যামার চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।

শ‍্যামার মেজো মেয়ে ঐন্দ্রিলার চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন ময়না। এত বছর পর আবার ‘ধুলোকণা’-য় সাবিত্রীর সঙ্গে কাজ করতে পেরে উচ্ছ্বসিত ময়না জানিয়েছেন, এই বয়সেও কিংবদন্তী অভিনেত্রীর এনার্জি বা তাঁর ডায়লগ মনে রাখার ক্ষমতা যথেষ্ট শিক্ষণীয়।

‘ধুলোকণা’-য় সাবিত্রী ময়নার শাশুড়ির চরিত্রে অভিনয় করছেন। সাবিত্রী ইমোশনাল সিনের রিহার্সালে একরকম, অথচ ফাইনাল টেকের সময় একদম আলাদা।

এখনও কান্নার দৃশ্যে তাঁর গ্লিসারিনের প্রয়োজন হয় না। কান্নার দৃশ্যে গলা কাঁপিয়ে সাবিত্রীর ভয়েস মডিউলেশন ময়নার বিশেষ পছন্দের। সাবিত্রী স্বর্ণযুগের প্রায় সব শিল্পীর সঙ্গেই কাজ করেছেন।

কিন্তু শুটিংয়ের এত প্রেশার থাকে যে এখনও অবধি তাঁর কাছ থেকে সেই সময়ের গল্প শোনা হয়নি বলে জানিয়েছেন ময়না।

সাবিত্রী ‘দিদি’ ডাক পছন্দ করেন। তাই সেটে সবাই তাঁকে ‘সাবুদি’ বলেই ডাকেন। সাবিত্রী সেটে মজার কথা বলেন। তা শুনে ফ্লোরে সবাই হেসে ফেলেন।

‘ধুলোকণা’-য় নিজের চরিত্র চিত্রায়ণের জন্য ময়না ধন্যবাদ জানিয়েছেন লীনা গঙ্গোপাধ্যায় (Leena Ganguly)-কে। ময়না বললেন, প্রথমে অন্য চরিত্র নিয়ে কথা হলেও পরবর্তীকালে এই চরিত্রটি পেয়ে ময়না খুশি। তিনি জানিয়েছেন, লীনার গল্প ও ডায়লগ তাঁর স্পেশ‍্যালিটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *