অভিনব কায়দায় পেঁপে গাছ দিয়ে ফাঁদ বানিয়ে প্রচুর শিং মাছ ধরলেন এক যুবক, শিং মাছ ধরার ভিডিওটি তুমুল ভাইরাল

মাছ একটি শীতল রক্তবিশিষ্ট মেরুদণ্ডী প্রাণী যার শ্বাস-প্রশ্বাসের জন্য ফুলকা রয়েছে,চলাচলের জন্য যুগ্ম অথবা অযুগ্ম পাখনা রয়েছে,এদের দেহে সচরাচর আঁইশ থাকে,সাধারণত এরা জলকেই বসবাসের মাধ্যম হিসেবে গ্রহণ করে থাকে।

সাধারণত এদের দেহের বহির্ভাগ আঁশ দ্বারা আচ্ছাদিত; তবে আঁশ নেই এমন মাছের সংখ্যাও একেবারে কম নয়।দেশীয় এসব মাছের মধ্যে রয়েছে— কৈ, মাগুর, শিং, পাবদা, টেংরা, পুঁটি, ডারকা, মলা, ঢেলা, চেলা, শাল চোপরা,

শৌল, বোয়াল, আইড়, ভ্যাদা, বুড়াল, বাইম, খলিসা, ফলি, চিংড়ি, মালান্দা, খরকাটি, গজার, শবেদা, চেং, টাকি, চিতল, গতা, পোয়া, বালিয়া, উপর চকুয়া, কাকিলা, গুত্তুম, বৌরানীসহ প্রায় ৫০টিরও বেশি মিঠা পানির বিভিন্ন ধরনের মাছ।

শিং মাছ হচ্ছে বর্গের একটি পরিবারের নাম। এরা এশিয়ায় বাস করে। এদের মুখে গোঁফ আছে ।শিং মাছের দেহ লম্বা ও চাপা। এদের পেট গোলাকার। এদের মাথা ক্ষুদ্রাকৃতির, দৃঢ়ভাবে চাপা এবং পাতলা ত্বক দ্বারা আবৃত।

চোখ ক্ষুদ্রাকৃতির এবং মাথার সম্মুখভাগের পার্শ্বদেশে অবস্থিত। এদের এক জোড়া লম্বা নলাকার বায়ুথলি মেরুদণ্ডের উভয় পার্শ্বে ফুলকাধার থেকে পশ্চাৎমুখে প্রসারিত হয়ে ফুসফুসের ন্যায় কাজ করে।

চোখ মুক্ত অক্ষিকোটরীয় কিনারাযুক্ত। এদের স্পর্শী আছে ৪ জোড়া। একটি খাটো কাঁটাবিহীন পৃষ্ঠপাখনা থাকে। পায়ুপাখনা দীর্ঘ। পাখনায় কোনো চর্বি থাকে না এবং পাখনাগুলো নিচু ধারের ন্যায় বিদ্যমান।

এদের বক্ষপাখনা বিষগ্রন্থিযুক্ত যা মানুষের জন্য ক্ষতিকর। এদের পৃষ্ঠপাখনা গোলাকার। ফুলকাপর্দা গভীর খাঁজযুক্ত ও যোজক থেকে আলাদা। এদের পটকা থাকে না।

শিং মাছ একটি দেশীয় মাছ যেটাকে গ্রামের খাল বিল এ বেশীর ভাগ পাওয়া যায়, আর এটিকে ধরা যায় ভিবিন্ন উপায়ে ,তার মধ্যে একটি ইউনিক পদ্ধতি দেখালেন যুবক ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *