Breaking News
Home / রাজনীতি / যে কারণে ৩০ ডিসেম্বর সারাদেশে সমাবেশের ঘোষণা বিএনপির

যে কারণে ৩০ ডিসেম্বর সারাদেশে সমাবেশের ঘোষণা বিএনপির

Advertisement

একাদশ নির্বাচনের দ্বিতীয় ‘বর্ষপূর্তি ৩০ ডিসেম্বর ঢাকাসহ সারাদেশের জেলা শহরে বি’ক্ষো’ভ স’মাবে’শের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএন’পি। সোমবার (২১ ডিসেম্বর) সকালে গুলশান কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের স্থায়ী কমিটির নেয়া এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, ‘‘ আগামী ৩০ ডিসেম্বর সেই কলংময় কালেঅ দিবসের দ্বিতীয় বতসর পুরন হবে। বাংলাদেশের মানুষ এই দিনটিকে ক্ষো’ভ ও ঘৃ’ণা’র সঙ্গেই স্মরণ করে। ২০১৮ সালের নির্বাচন বাতিল করে পুনরায় নির্বাচনের দাবিতে আগামী ৩০ ডিসেম্বর দেশে জেলা ও মহানগর পর্যায়ে সকাল ১১টায় বিক্ষোভ সমাবেশ।

ঢাকা মহানগর দক্ষিন ও উত্তর যৌথভাবে প্রেস ক্লাবের সামনে সকাল ১১টায় সমাবেশ অনুষ্ঠান করবে।” গত ১৯ ডিসেম্বর দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে স্থায়ী কমিটির ভার্চুয়াল বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব ছাড়া খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ,

জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন। ক’রো’না ভা’ইরা’সে’র ভ্যা’ক’সিন সংগ্রহ ও বিতরন সম্পর্কে বিএনপি মহাসচিব বলেন,

‘‘ ক’রো’না ভা’ইরা’সের ভ্যা’ক’সিন সংগ্রহ ও বিতরণের একটি পরিকল্পনা সরকার প্রকাশ করলেও তা জনগনের কাছে স্পষ্ট নয়। ভ্যা’কসি’ন সংগ্রহ ও তার সংরক্ষন, পরিবহন এবং বিতরণের বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে সম্পন্ন করা জরুরী। সংগ্রহকৃত ভ্যাকসিন সুনির্দিষ্ট তা’পমা’ত্রা’য় সংরক্ষন, দেশের প্রতিটি জেলা-

উপজেলায় বিতরণ এবং নীতিমালা সঠিকভাকে পালণ করে ভ্যা’কসি’ন গ্রহি’তার কাছে ভ্যা’কসি’ন প্রয়োগ পর্যন্ত একটি টেকনিক্যাল বিষয় হওয়ায় ভ্যা’কসি’ন সংশ্লিষ্ট কর্মীদের যথাযথ প্রশিক্ষন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এই বিষয়গুলো সম্পর্কে কাল বিলম্ব না করে একটি রোড ম্যাপ প্রণয়ন ও তা জনগনের কাছে স্পষ্টভাবে অবহিতকরণ, সকল ক্ষেত্রে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করণ এবং জনগনের স্বাস্থ্য নি’রা’প’ত্তা’কে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে পুরো পরিকল্পনা জনগনের কাছে প্রকাশ করা প্রয়োজন বলে স্থায়ী কমিটির সভা মনে করে।”

স্থায়ী কমিটির সভায় সীমান্ত হত্যা বন্ধ ও পৌরসভার অনুষ্ঠিত নির্বাচনগুলোতে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করতে না পারা ও নির্বাচন কমিশনের ব্য’র্থ’তায় নি’ন্দা ও ক্ষো’ভ প্রকাশ করা হয়।

গত ১৭ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মধ্যকার ভার্চুয়াল বৈঠকে যে কয়েকটি চু’ক্তি স্বা’ক্ষর হয়েছে তা বিস্তারিতভাবে জনগনের কাছে প্রকাশ না করায় স্থায়ী কমিটির সভায় ক্ষোভ প্রকাশ করা হয় বলে জানান বিএনপি মহাসচিব।

ভ্রান্ত”নীতি ও শিক্ষা ব্যবস্থার দু’র্নী’তির কারণে বাংলাদেশ একটি শিক্ষা প্র’তিব’ন্ধী জাতি হিসেবে পরিণত হতে চলেছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘‘ বৈর্শ্বিক সূচকে ১৩৮টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১১২তম এবং দক্ষিন এশিয়ার সর্বনিম্ন হওয়ায় স্থায়ী কমিটির বৈ’ঠ’কে হ’তা’শা এবং সর’কা’রের ব্য’র্থ’তার’ স’মা’লো’চনা করা হয়।”

Advertisement

Check Also

হেফাজতের ভাঙ্গন প্রক্রিয়া চূড়ান্ত: মামুনুল-বাবুনগরীর বিদায়!

Advertisement সাম্প্রতি সময়ের কর্মকাণ্ডের জন্য হেফাজতকে কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে পরতে হয়েছে। সারাদেশে নাশকতা ও নৈরাজ্য …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *