অবশেষে সবাইকে কাঁ’দিয়ে মা;রা গেলেন জনপ্রিয় অ’ভিনেতা আবদুল কাদের

Sabbir Rahman 0

জনপ্রিয় অ’ভিনেতা আব’দুল কা’দের আ;র নে’ই। শনি’বার সকাল ৮টা ২০ মিনিটে রা’জধানীর এভা”রকেয়ার হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন থেকে তিনি মা;রা যান (ইন্না ‘ল্লাহি … রাজি’উন)। তিনি স্ত্রী’, এক ছে’লে ও এক মে”য়ের জ’নক।

এ ছাড়া তি’নি রেখে গে’ছেন নাতি-না’তনি’সহ অসং’খ্য গুণ’গ্রাহী। এ তথ্য নিশ্চিত ক’রেছেন আবদু’ল কা’দেরের পুত্র’বধূ জা’হিদা ইস’লাম জেমি। জানা যায়, অ”সুস্থতা ‘নিয়ে চিকিৎ’সার জন্য সম্প্রতি ভা”রতে গি’য়েছিলেন এ অ’ভিনেতা।

সেখা’নে গিয়ে তার ক্যা’ন্সা’র ধ’রা পড়ে। গত ২০ ডিসে’ম্বর ভা’রত থেকে দেশে ফেরেন তিনি। শা”রী’রিক অবস্থা সংক’টা’পূর্ণ হওয়ায় দে’শে ফে’রার পরই রাজ’ধানীর এভা”রকেয়া’র হা’সপাতা’লে তাকে ভর্তি ক’রা হয়।

সেখানে ক’রো’নার টে’স্ট করা হলে গত ২১ ডিসেম্বর তার রি’পো’র্ট প’জি’টিভ আসে। এদিকে অ’ভিনে’তা আবদুল কাদে’রের মৃ;ত্যু;তে শো;ক জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

উল্লেখ্য, ১৯৫১ সালে মু’ন্সীগঞ্জ জে”লার ট’ঙ্গীবাড়ি থা’না’র সো’নারং গ্রামে অ’ভি’নেতা আব’দুল কাদে’রের জন্ম। ঢাকা বিশ্ব’বিদ্যালয় থে’কে অর্থ’নীতিতে স্না’ত’কো’ত্তর শে’ষ করার পর তিনি সি’ঙ্গাইর কলেজ ও লৌ’হ’জং কলেজে অ’ধ্যা’পনায় নি’যু’ক্ত হন।

পরে জুতা তৈরি’কারক প্রতিষ্ঠা’ন বাটায় যো’গ দেন ১৯৭৯ সা’লে; সেখানে ছিলেন ৩৫ বছর। তার অ”ভিনীত ম’ঞ্চনাট’কগুলোর মধ্যে রয়েছে– ‘পায়ের আও’য়াজ পাওয়া যায়’, ‘এখনও ক্রী’তদাস’, ‘তোম”রাই, স্পর্ধা’, ‘দুই বোন’, ‘মে’রাজ ফ’কিরের মা’।

টিভিতে তিনি তিন হা’জারের মতো নাট’কে অ’ভিনয় ক’রেছেন। বিটি’ভির জনপ্রি’য় ম্যাগাজিন অ’নুষ্ঠান ‘ইত্যা’দি’র নি’য়মিত শিল্পী তিনি। প্রয়াত ক’থাসাহি’ত্যিক ও নির্মা’তা হু’মা’য়ূন আহমেদের বহু জনপ্রিয় নাট’কে গুরুত্বপূ’র্ণ চরিত্রে অ’ভিনয় ক’রে দর্শকদে’র হৃদয়ে জা’য়গা করে নেন কাদের।

তিনি হু”মায়ূন আহম’দের ‘কোথাও কেউ নেই’ নাট’কে বদি’ভাই চরিত্রে অ’ভিনয় করে ব্যাপক’ জ’নপ্রিয়তা পান। ২০০৪ সালে আব’দুল কাদের অ’ভিন’য় করেন ‘রং না’ম্বার’ চলচ্চিত্রে।

দীর্ঘ অ’ভিনয় জী’বনের স্বীকৃতি হিসেবে টেনাশি’নাস পদক, মহা’নগরী সাং’স্কৃতিক ফোরাম পদক, অগ্র’গা’মী সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী প’দক, জাদুকর পিসি সর’কার পদক, টেলি’ভিশন দ’র্শক ফোরাম অ্যাও’য়ার্ড, ম’হানগ’রী অ্যাওয়ার্ডসহ বেশ কিছু পদকও পে’য়েছেন আবদু’ল কা’দের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *