মনে জানে পাপ, পু’লিশ জানে বাপ; না’না যখন না’তনীর স’ন্তানের বাবা

Sabbir Rahman 0

মনে জানে পাপ, পু’লিশ জানে বাপ- এ প্রবাদটির সত্যতা মিললো রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি থা’না পু’লিশের তদ’ন্তে। দীর্ঘ দিনের অনুসন্ধান ও জ’টিল সব বা’ধা পেরিয়ে অবশেষে পু’লিশের ধারণাটির সত্যতা মিললো।

বালিয়াকান্দি থা’নার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তারিকুজ্জামান জা’নান, উপজে’লার নবাবপুর ইউনিয়নের বড়হিজলী গ্রামে সপ্তম শ্রেণীর এক মাদরাসাছাত্রীর (১৪) সন্তানের পিতৃপরিচয় নিয়ে ছিল ধোঁয়াশা।

ওই ছাত্রী ও পরিবারের পক্ষ থেকে নবাবপুর ইউনিয়নের বড়হিজলী গ্রামের ইউপি সদস্য আয়ুব আলী সরদার ওরফে আয়ুব মেম্বারের ছেলে সোনাপুর মীর মশাররফ হোসেন কলেজে’র ছাত্র আকিদুল ইসলামকে সন্তানের বাবা বলে দা’বি করে আসছিল।

এনিয়ে বালিয়াকান্দি থা’নায় ওই ছাত্রীর বাবা মা’মলা দা’য়ের করেন। আসামিদের পক্ষ থেকে আদালতে ডিএনএ টেস্টের জন্য আবেদন করেন। এতে ওই কলেজছাত্র নি’র্দোষ প্রমাণিত হয়। এরপরও ধোঁয়াশা কাটছিল না।

ওসি আরো বলেন, আমি ভিকটিমকে একাধিকবার জিজ্ঞাসা করা সত্ত্বেও সে ওই ছাত্রের নামই বলতে থাকে। পরে স’ন্দে’হমূলক ১০ জনের নাম গ্রহণ করে সত্যতা যাচাইয়ে কাজ করা হয়।

ডিএনএ টেস্টে পজিটিভ হওয়ার পর অবশেষে সোমবার রাতে উপজে’লার নবাবপুর ইউনিয়নের বড়হিজলী গ্রামের জবেদ বিশ্বা’সের ছেলে ওই ছাত্রীর ছোট নানা সাঈদ বিশ্বা’সকে (৩২) গ্রেফতার করা হয়।

গ্রে’ফতা’রের পর প্রাথমিক জিজ্ঞা’সাবাদে সে সত্যতা স্বী’কার করে। তাকে মঙ্গলবার সকালে রাজবাড়ী আ’দালতে পা’ঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *