অস্টেলিয়ার ভিসা পেতে আ’পন বো’নকে বি’য়ে

অস্টেলিয়ার ভিসা পেতে আপন বোনকে বিয়ে করেছেন পাঞ্জাব প্রদেশে এক ভাই। এমন ঘটনার পর নড়ে-চড়ে বসেছে দেশটির পু’লিশ। তথ্যটি নিশ্চিত করে সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, মে’য়ের ভাই স্থায়ী ভাবেই অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস করে আসছিলেন।

সে জন্য বোনকেও সে দেশের নাগরিকত্ব পাইয়ে দিতে পরিচয় গো’পন রেখে পাঞ্জাব কোর্টে গিয়ে বিয়ে করেন তারা। এবং বোনটির অস্ট্রেলিয়ার ভিসা নিশ্চিত হয়ে গেছে বলেও জানা গেছে।

পু’লিশ কর্মক’র্তা জয় সিংহ বলেন, ত’দন্ত করে জানতে পেরেছি মে’য়েটি অস্ট্রেলিয়ার ভিসা পেয়ে গেছে। এখন সে অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক। এমনকি মে’য়েটি কিছুদিন আগে অস্ট্রেলিয়ায় গিয়েছিলো, সেখানে তারা স্বামী-স্ত্রী’ পরিচয়ে ছিল।

জয় সিংহ আরও বলেন, তারা দুইজন সামাজিক ব্যবস্থা, আইনী ব্যবস্থা এবং ধ’র্মীয় ব্যবস্থার সাথে প্রতারণা করেছে। মানুষ বিদেশে যাওয়ার জন্য নানা ফন্দি করে এটা মানছি।

তাই বলে এমন প্রতারণার কথা এটাই প্রথম শুনেছি। আম’রা অ’বাক ও আশ্চর্য হয়েছি।‘ তাদেরকে আ’ট’ক করতে পু’লিশ চেষ্টা চালাচ্ছে।

ফাইভ জি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে আইওটি (ইন্টারনেট অব থিংগস) ডিভাইস বলে দেবে ফসলের জমিতে কোন সার কখন, কতটুকু দিতে হবে কিংবা জানা যাবে পুকুরে মাছের খাদ্যের চাহিদা কেমন।

রোববার (১৭ জানুয়ারি) রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশের (আইইবি) কম্পিউটার কৌশল বিভাগের উদ্যোগে দারিদ্র বিমোচনে আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে ফিন্যান্সিয়াল টেকনোলজির ভূমিকা শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অ’তিথি বক্তব্যের ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ গত ১২ বছরে ফিন্যান্সিয়াল প্রযু’ক্তিতে বিস্ময়কর সাফল্য অর্জন করেছে। আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে ইন্টারঅ’পারেবিলিটি চালু হওয়ার পর সামনের দিনে বিদ্যমান এই অবস্থা আরও উন্নত হবে। সামনের দিন হবে ক্যাশলেস সোসাইটির দিন।’

তিনি আরও বলেন, ‘১২ বছরে বাংলাদেশ যে পথ অ’তিক্রম করেছে এর ধারাবাহিকতায় সামনের দিনগুলোতে বাংলাদেশকে পেছনে ফেলার আর কোনো সুযোগ নেই।’

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ‌‘পুঁজি শিল্পায়ন নিয়ন্ত্রণ করবে না। যারা উদ্ভাবক, মেধাবী ও সৃজনশীল সামনের দিনে তারাই হবে শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিক। উন্নয়ন ও গবেষণা ছাড়া শিল্প ও বাণিজ্যে কেউ টিকতে পারবে না।’

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে প্রচলিত জীবন ধারা থাকবে না জানিয়ে মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘যারা উদ্ভাবক তারাই হবেন সবচেয়ে বেশি সম্পদের মালিক। ফাইভ জি প্রযু’ক্তি হবে শিল্পের প্রয়োজনে।

পুকুরে আইওটি ডিভাইস বলে দেবে মাছের খাদ্যের চাহিদা কিংবা ফসলের জমিতে কী’ সার কখন, কতটুকু দিতে হবে, কখন সেচের প্রয়োজন হবে, ফাইভ জি সেই কাজটি করবে।’

‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে যখন ড্রাইভা’রহীন গাড়ি থাকবে কিংবা কর্মীহীন পোশাক শিল্প চলবে সে অবস্থায় আমাদের ভ’য়ের কিছু নেই। বর্তমান প্রজন্ম চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সঙ্গে সঙ্গে বড় হবে।

শতকরা ৬৫ ভাগ তরুণ জনগোষ্ঠীকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ডিজিটাল দক্ষতায় গড়ে তুলতে পারলে যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সক্ষম।’অনুষ্ঠান মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কানাডিয়ান ইউনিভা’র্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য অধ্যাপক মুহাম্ম’দ মাহফুজুল ইস’লাম।

আইইবি কম্পিউটার কৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান মো. তমিজ উদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযু’ক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং

আইইবির প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মো. আবদুস সবুর, আইইবির প্রেসিডেন্ট মো. নুরুল হুদা, ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. নুরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. শাহাদাৎ হোসেন (শীবলু) এবং টেলিট’ক বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাহাব উদ্দিন বক্তৃতা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *