দ্বিতীয় সন্তানের আগমন নিয়ে বড় আপটেড দিলেন সইফ

Sabbir Rahman 0

শীঘ্রই দ্বিতীয়বার মা ‘হতে চলেছেন করিনা কাপুর খান। অগস্ট মাসে যৌ’থ বিবৃতি দিয়ে দ্বিতীয় সন্তানের আগমন বার্তা দিয়েছিলেন সইফিনা। তারপর থেকেই অধীর আগ্রহে চলছে প্রতীক্ষা।

তৈমুরের জন্মের আগেও যেমন নিজেকে কর্মব্যস্ত রেখেছিলেন করিনা, এবার তার অন্যথা হয়নি। বিজ্ঞাপনী শ্যুট থেকে নিজের রে’ডিও শোয়ের শ্যুটিং- পুরোদমে চালিয়ে গিয়েছেন বোবো। কারণ তিনি ‘ওয়ার্কিং মা’দার’।

এবার সইফ জানালেন কবে দ্বিতীয়বার বাবা-মা ‘হতে চলেছেন তাঁরা। ফিল্মফেয়ারকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে পতৌদির নবাব জানান ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতেই সন্তানের জন্ম দেবেন করিনা।

সইফ বলেন, দ্বিতীয়বার অনেক বেশি চিন্তামুক্ত তাঁরা। কারণ তৈমুরের জন্মের আগে প্রথমবার মা ‘হতে চলা করিনা আরও বেশি টেনশনে ভুগতেন। পাশাপাশি সইফের কথায় চার নম্বর বার বাবা ‘হতে চলার খবরটা এখনও মাঝেমধ্যে বিশ্বা’স করে উঠতে পারছেন না তিনি।

প্রথম স্ত্রী অমৃ’তার স’ঙ্গে সইফের দুই সন্তান- সারা ও ইব্রাহিম। বড় মেয়ে সারা ২৬-এ পা দেওয়ার আগেই ফের একবার সন্তানের মুখ দেখবেন সইফ। অগস্ট মাসে করিনা-সইফ এক যৌ’থ বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছিলেন- ‘আমর’া খুব খুশি হয়ে যাচ্ছি যে শীঘ্রই আমা’দের পরিবারের সদস্য সংখ্যা বাড়তে চলেছে!!

ধন্যবাদ আমা’দের সকল শুভাকাঙ্ক্ষীদের তাঁদের ভালোবাসা ও সমর’্থনের জন্য’। তৈমুরের বাবা-মা দ্বিতীয়বার সন্তানের কোনও প্ল্যানিং করেননি। করিনার প্রেগন্যান্সি নিউজ শুনে কী প্রতিক্রিয়া হয়েছিল সইফের, সেই সম্পর্কে জুম চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে করিনা বলেন ফিল্মি পরিবারের অংশ হলেও পরিবারের কাছ থেকে এই সব ব্যাপারে দুর্ভাগ্যবশত কোনওরকম ফিল্মি প্রতিক্রিয়া তিনি পাননি।

করিনা যোগ করেন- ‘সইফ ভীষণ নর্ম্যাল এবং রিল্যাক্সড মানুষ। অবশ্যই খবরটা শুনে ও দারুণ আনন্দ পেয়েছিল। আমি যেমনটা বলছিলাম, এটা আমর’া প্ল্যান করিনি কিন্তু আমর’া এই খুশিটা একস’ঙ্গে ভাগ করে নিয়েছি এবং ভীষণরকমভাবে এনজয় করছি’।

কাজ আর সন্তান দুটোই ম্যানেজ করতে এক্সপার্ট করিনা কাপুর খান। নায়িকার প্রেগন্যান্সি স্টাইল স্টেটমেন্ট সবসময়ই থাকে চর্চায়। ফেব্রুয়ারিতে দ্বিতীয় সন্তানের জন্মের পর মাসখানেকের বিরতি নেবেন করিনা। তবে শীঘ্রই কাজে ফিরবেন। সদ্যই তৈমুরকে নিয়ে নিজেদের নতুন বাড়িতে শিফট করেছন সইফিনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *