গ্রে’ফতার সূচি, যা বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আজ ভোরে মিয়ানমারে সা’মরিক অ’ভ্যু’ত্থান হয়ে’ছে এবং ক্ষম’তাসীন দ’লের নে’ত্রী অং সা’ন সু চি’কে গৃ’হব”ন্দী করা হয়েছে। সু চির এই ঘট’না প্র’ধানম’ন্ত্রী শেখ হা’সিনা জা’নার পর প’রই তি’নি দুঃ’খ প্রকা’শ ক’রেছেন।

সু চির প্র’তি দর’দ ‘এবং ম’মত্ব শে’খ হাসিনার সব’সময় ছি’লো। আর এ ‘কারণে মি’য়ানমার রো’হিঙ্গা’দের এ’তো নির্যা’তন ক’রলেও শে’খ হাসিনা আ’লো’চনার প’থ উ’ন্মুখ রে’খেছি’লেন।

সর্বশেষ প্রধা’নমন্ত্রী শে’খ হাসিনা এক অনুষ্ঠা’নে বলে’ছিলেন যে আমরা শ’ন্তিপূর্ণ’ভাবে আ’লোচনার মাধ্যমে রো’হিঙ্গা স’মস্যা সমা’ধান করতে চা’ই। সু চি এ’বং শেখ হা’সিনার অ’দ্ভুদ কি’ছু মি’ল আ’ছে।

দু’জনই গণ’তন্ত্রের জন্য সং’গ্রাম ক’রেছেন। গণ’তান্ত্রিক সংগ্রামে সু চি বিজ’য়ী হতে পা’রেননি, শেখ হা’সিনা বি’জয়ী হতে পে’রেছেন।যদিও গণ’তন্ত্রের সংগ্রা’মে সু চির আন্ত’র্জাতিক স্বী’কৃতি অনেক বে’শি ছিলো এবং তিনি গণ’তন্ত্রের সংগ্রা’মের জন্য শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন।

কিন্তু নিজের দেশেই তিনি গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে পারেননি। অন্যদিকে শেখ হাসিনা শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক সংগ্রামের মাধ্যমে বাংলাদেশে কেবল ভোটের অ’ধিকারই সুনি’শ্চিত ক’রেননি পাশা’পাশি তিনি বাং’লাদেশে হ’ত্যা’- ক্যু ও ষ’ড়’য’ন্ত্রের ‘রাজনীতির ধারা ব’ন্ধ করতে ‘পেরেছেন।

বাংলাদেশে এখন সাংবিধানিকভাবেই সামরিক হস্তক্ষেপ, অগণতান্ত্রিক হস্তক্ষেপ রাষ্ট্রদোহীতার সমতুল্য অপরাধ আর এখানেই শেখ হাসিনার সাফল্য।

তিনি অগ’ণতা’ন্ত্রিক অধ্যা’য়ে ক্ষম’তা দখলে’র পথ ‘চির’তরে ব’ন্ধ করে দি’য়েছেন কি’ন্তু সু’ চি সে’টা পা’রেননি। ‘তার পরেও সু ‘চির প্রতি শে’খ হা’সিনার ভা’লোবা’সা এ’বং প’ক্ষপা’ত ছি’লো এবং আ’ছে। এখন’ তার অ’নিশ্চি’ত রা’জ’নৈতিক জী’ব’নের ফ’লে বাংলাদেশ মিয়া’ন’মা’র সম্প’র্কের ক্ষে’ত্রেও নতুন মে’রুকরণ ঘ’টবে বলে অ’নেকে ম’নে ক’রছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *