Jio কে ধূলিসাৎ করে দ্রুততম ইন্টারনেট পরিষেবা নিয়ে আসতে চলেছেন বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি

বর্তমানে বিশ্বের শীর্ষ ধনী ব্যক্তি টেসলা (Tesla) ও স্পেসএক্স’র (Space X) মালিক এলন মাস্ক (Elon Mask)। এলনের মোট সম্পদের পরিমাণ ১৮ হাজার ৫০০ কোটি (১৮৫ বিলিয়ন) ডলার।

গত বছরের শীর্ষ ধনী ব্যক্তি অ্যামাজনের প্রধান কর্মকর্তা জেফ বেজসকে সরিয়ে প্রথম স্থান দখল করলেন এলন। আর এবার এলন গোটা বিশ্বে ইন্টারনেট পরিষেবায় বিপ্লব ঘটাতে কোমর বাধঁছেন।

বর্তমানে ইলেকট্রিক গাড়ি ও স্পেস এক্স ছাড়াও ইন্টারনেটের বাজারে বিপ্লবকারী ‘মহাপ্লান (Mahaplan)’ এর জন্য প্রস্তুত এলন মাস্ক। এর জন্য এলনকে মূলত আমাজনের সিইও জেফ বেজোসের সাথে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করতে হবে।

আমেরিকা তো ভারতের মত বিশ্বের বেশ কিছু দেশে এই প্রকল্পের কাজ শুরু করে দিয়েছেন। এলন তার ‘মহাপ্লান ‘ প্রকল্পে সফল হলে তা রীতিমত অশনি সংকেত রিলায়েন্স জিও ও এয়ারটেলের মত টেলিকম সংস্থাগুলির কাছে।

এলন মাস্ক পৃথিবীর বাইরে মহাকাশে যে সমস্ত স্যাটেলাইট পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করছে তার মোট পরিমানের এক চতুর্থাংশের মালিক। আর প্রতিনিয়ত আরো বেশি করে স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠাচ্ছেন এলন।

এবার আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই ১২০০০ স্টারলিংক স্যাটেলাইট পাঠানোর টাগেট নিয়েছেন এলন মাস্ক। যদি তা হয়, তাহলে পৃথিবী থেকে স্যাটেলাইট হয়ে সিগন্যাল ফিরে আসার সময় অনেক কমে যাবে। ফলে অনেক দ্রুত গতির ইন্টারনেট পরিষেবা পাওয়া যাবে।

আর এই ধরণের ইন্টারনেট পরিষেবা চালু করতে পারলে পৃথিবীর প্রত্যন্ত প্রান্তেও খুব সহজেই দ্রুতগতির ইন্টারনেট পরিষেবা পাওয়া যাবে। যেমন ধরুন আফ্রিকার সুদূর কোনো গ্রামে যেখানে হয়তো খুব বেশি মানুষেরও বাস নেই সেখানেও চাইলেই পাওয়া যাবে দ্রুত ইন্টারনেট।

এমনকি আমেরিকা থেকে ভারতে তথ্যের আদান প্রদানের যে সময় লাগে তাও কমে যাবে ব্যাপক ভাবে। এমনকি কক্ষপথে স্যাটেলাইটের সংখ্যা বেড়ে গেলে ৫জি পরিষেবা দেওয়াও সহজ হয়ে পড়বে।

তবে, এক্ষেত্রে এলনকে সর্বপ্রথম পৃথিবীর দ্বিতীয় ধনী ব্যক্তি জেফ বেনজোর (Jeff Benzo) সাথে মোকাবিলা করতে হবে। কারণ জেফ বেনজোও চান বিশাল সংখ্যক স্যাটেলাইট লঞ্চ করতে। কারণেই তিনিও জানেন বেশি সংখ্যক স্যাটেলাইট থাকলে পৃথিবীর সুপার পাওয়ার হিসাব উত্থান ঘটতে পারে তার। সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে মিলিটারি কাজের ক্ষেত্রেও পরিষেবা দেওয়া যেতে পারে। এরফলে যেমন মোটা টাকা ইনকাম হবে তেমনি ক্ষমতাও থাকবে অনেকটা।

এলনের এই প্রকল্প যদি সফল হয় তাহলে আমাদের দেশ অর্থাৎ ভারতে সবথেকে বেশি চাপে পড়বেন মুকেশ আম্বানি (Mukesh Ambani)। কারণ বর্তমানে ভারতে সবচেয়ে সস্তা ৪জি ইন্টারনেট পরিষেবা দিচ্ছেন মুকেশ আম্বানি। এমনকি ভারতে ৫জি লঞ্চের প্রস্তুতিও সেরে ফেলেছে রিলায়্যান্স জিও। এমতাবস্থায় যদি এলন মাস্কের মহাপ্ল্যান সফল হয় তাহলে তা মুকেশ আম্বানির রিলায়্যান্স জিও ও ভারতী এয়ারটেল (Bharti Airtel) এর মত টেলিকম কোম্পানিগুলির জন্য খুবই চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়াবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *