মাটির নীচে প্রায় ‘অক্ষত’ ২০০০ বছরের রথ, ইতালিতে গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক আবিষ্কার

মাটির নীচে প্রায় অক্ষত অবস্থায় ২০০০ বছরের পুরনো একটি রথ আবি’ষ্কৃত হল ইটালির পম্পেয়ি এলাকায়। পম্পেয়ির প্রত্নতাত্ত্বিক আধিকারিকরা শনিবার এই ঘোষণা করে জানিয়েছেন, এটি একটি ‘ব্যতিক্রমী ও নজিরবিহীন আবি’ষ্কার’।

এর আগে ইটালিতে এমন গু’রুত্বপূর্ণ আবি’ষ্কার আর হয়নি। উৎসব-অনুষ্ঠানের সময় ব্যবহার করা ‘হত ওই রথ। পম্পেয়িতে খননকার্যে রত আধিকারিকরা জানিয়েছেন, রথটির লোহার কাঠামো, ব্রোঞ্জের সাজসজ্জা,

এবং সুদৃশ্য কারুকার্য করা কাঠের ব্যবহারের প্রমাণ এখনও স্পষ্ট। প্রাচীন শহর পম্পেয়ির উত্তরে উ’দ্ধার হওয়া ওই রথটি রাখা ছিল শহরের প্রাচীরের কাছাকাছি একটি আস্তাবলের সামনে। উল্লেখ্য, এই রথ যেখানে মিলেছে,

তার কাছাকাছিই বেশ কিছু দিন আগে উ’দ্ধার হয়েছিল ৩টি ঘোড়ার দে’হাবশেষ। প্রায় ২০০০ বছর আগে ৭৯ খৃষ্টাব্দে ভিসুভিয়াস আ’গ্নেয়গিরির ভয়’ঙ্কর লাভা উদ্গীরণের ফলে ধ্বং’স হয়ে গিয়েছিল ইতালির প্রাচীন শহর পম্পেয়ি।

প্রত্নতত্ত্ববিদদের অনুমান, ওই সময় গলিত লাভার চাপে ওই প্রাচীর এবং যে খোলা ঘরে রথটি রাখা ছিল, তার ছাদ ভেঙে পড়ে রথটির উপর। তার জেরে কিছুটা ক্ষ’তি হয়েছিল। গত ৭ জানুয়ারি ওই এলাকার একটি অংশ দেখা যায়।

তার পর থেকেই খননকার্য শুরু হয়। শনিবার ওই রথটি আবি’ষ্কার হয়। পম্পেয়ি শহরের ধ্বং’সের ইতিহাস ইটালিতে সুবিদিত। প্রাচীন ও মূল্যবান সামগ্রীর লোভে তাই ওই এলাকায় দুষ্কৃতীদের আনাগোনা নিয়মিত।

২০১৭ সালে তেমনই একটি চক্রের হদিশ পায় ইটালির পুলিশ-প্রশাসন। ওই এলাকার কাছাকাছি থাকা কিছু দুষ্কৃতী একাধিক সুড়’ঙ্গ তৈরি করে ফেলেছিল। ওই সুড়’ঙ্গ দিয়ে মাটির নীচ থেকে খুঁড়ে আনা বিভিন্ন প্রত্নসামগ্রী গো’পনে বিক্রি করে দিত তারা।

সেই চক্রের ধৃত ২ জন এখনও বিচারাধীন। এর আগে এই এলাকা থেকেই চাষের ফসল নিয়ে যাওয়ার জন্য ব্যবহৃত গাড়ি পাওয়া গিয়েছিল। কিন্তু এই প্রথম এমন রথ আবি’ষ্কৃত হল ইটালিতে।

এই রথটির সাজসজ্জা, কাঠামো ও অন্যান্য বৈশিষ্ট্য খতিয়ে দেখে ইতিহাস গবেষকরা মনে করছেন, মূলত উৎসব, শোভাযাত্রা, পদযাত্রার মতো অনুষ্ঠানে অংশ নিত এই ধরনের রথ। পাশাপাশি নববধূকে নিয়ে যাওয়ার জন্যও এই রথ ব্যবহার ‘হত বলে মনে করছেন তাঁরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *