Breaking News
Home / ব্যবসা / ১০ লক্ষ টাকার দেনায় জর্জরিত এই চাষী শুধু বাঁশ চাষ করে আজ কোটিপতি

১০ লক্ষ টাকার দেনায় জর্জরিত এই চাষী শুধু বাঁশ চাষ করে আজ কোটিপতি

Advertisement

গ্রামে তিনি বাঁশ (Bamboo) চাষী হিসেবে পরিচিত। বাঁশ চাষ করেই আজ কোটিপতি তিনি। কিন্তু একটা সময় তিনি ছিলেন সম্পূর্ণ দেনায় ডুবে। বর্তমানে বাঁশ চাষ করেই বছরে অন্তত ১ কোটি টাকা আয় করেন রাজ শেখর পাতিল।

তবে বাঁশের পাশাপাশি তার জমিতে ফল সবজি চাষ হয়। জন্ম তার মহারাষ্ট্রের নিপানি গ্রামে। গ্রামের নামের অর্থই জলহীন, সম্পূর্ণ অঞ্চলটি খরা কবলিত।জল না থাকায় চাষবাদে সমস্যা হচ্ছিল প্রচুর।

এর জেরে তার বাবা, যিনি নিজেও একজন চাষী ছিলেন, তিনি ১০ লাখ টাকা দেনা করে ফেলেন। দেনা চলাকালীনই নিজের পড়াশুনা শেষ করে এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায় যোগ দেন তিনি। সেখান থেকে মাসে মাত্র ২ হাজার টাকা আয় ‘হতো তার।

পরবর্তীকালে সেই আয় বেড়ে ৬০০০ টাকা হলেও ১০ লাখ টাকা দেনা শোধ করার জন্য তা ছিল খুবই নগণ্য।২৭ বছর বয়স হলে পরিবারের হাল ধ’রার জন্য গ্রামে ফেরেন তিনি।

প্রথমে উচ্চ পদস্থ অফিসার হওয়ার ইচ্ছে থাকলেও সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি। এরপরই নিজেদের ১৬ একর জমিতে আম, জাম, সহ বিভিন্ন ফলের চাষ শুরু করেন তিনি।এই চাষে তার আয় ‘হতে শুরু করলো ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা।

২০০২ সাল থেকে বদলে যায় তার ভাগ্য। গ্রামের এক চাষী বাঁশের ব্যবসায় খরিদ্দার না পাওয়ায় ফেলে দিয়েছিলেন সব বাঁশ।জমিতে বেড়া হিসেবে সেই বাস কাজে লাগানোর জন্য নিয়ে আসেন রাজ শেখর।

২০০৫ সাল থেকে গ্রাহক নিজেই বাঁশের খোঁজে তার কাছে আসতে শুরু করে।বছরে প্রায় ২০ লাখ টাকা উপার্জন ‘হতে শুরু করে তার। এরপর থেকেই সারা দেশ জুড়ে বিভিন্ন প্রজাতির বাঁশের চারা এনে নিজের জমিতে পুঁততে শুরু করেন তিনি।

এই ব্যবসা যে লাভদায়ক, সেটা তিনি বুঝে গিয়েছিলেন।এই ব্যবসায় না লাগে খুব বেশি জল, না লাগে খুব বেশি পরিচর্যা। এখন তিনিই বছরে এক কোটি টাকা আয় করেন।

পাশাপাশি তার ইউটিউবে একটি চ্যানেল রয়েছে যার নাম ‘রাজশেখর পাটিল বাম্বু’। ৮ হাজারের বেশি মানুষ তার গ্রাহক। বিভিন্ন প্রজাতির বাঁশ কিভাবে চাষ করে সাফল্য পাওয়া যায় সেটাই তিনি শেখান এই চ্যানেলে।

Advertisement

Check Also

বউয়ের একটা আইডিয়া বদলে দিল দম্পতির ভাগ্য। দু’জনে হলেন কোটিপতি

Advertisement বউয়ের একটা আইডিয়া – কথায় বলে, প্রত্যেক সফল পুরুষের নেপথ্যে থাকেন এক জন মহিলা। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *