স্ত্রীর সঙ্গে লাইভে এসে সিনেমা ছাড়ার কারণ জানালেন শাকিল খান

শাকিল খান, এ দেশের চলচ্চিত্রের একটি পরিচিত মুখ। ঢাকাই চলচ্চিত্রে বেশ প্যারাল দাপট দেখিয়ে অভিনয় করে গেছেন। চিত্রনায়িকা পপির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে গুঞ্জন ডালপালা মেলেছিল বেশ জোরালোভাবেই।

তবে অভিনয় আর প্রেম এখন অতীত। এখন ব্যবসা, সমাজসেবা নিয়ে ব্যস্ত এই অভিনেতা। সম্পর্কের সূত্রটা কেটে গেলেও অভিনয়ের মানুষদের সঙ্গে যোগাযোগ একেবারে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়নি।

শাকিল খানের স্ত্রী শারমিন হোসেন একজন নারী উদ্যোক্তা।  তার একটি বুটিক হাউস রয়েছে। ক্রেতাদের অনুরোধে আজ সোমবার স্বামীকে তিনি তার ব্যবসায়িক ফেসবুক পেইজ থেকে লাইভে আসেন।

স্ত্রীর লাইভে সিনেমা থেকে দূরে থাকার কারণ জানিয়ে ব্যবসা করতে স্ত্রীকে উৎসাহ দেন এই অভিনেতা। বর্তমানে পরিবারকে নিয়ে অবসর কাটাতে কক্সবাজারে রয়েছেন শাকিল খান। সমুদ্রের পাড় থেকেই স্ত্রীর ফেসবুক লাইভে যুক্ত হয়েছিলেন তিনি।

লাইভে এক দর্শক শাকিল খানকে প্রশ্ন করেন, তিনি কেনো এখন আর সিনেমায় অভিনয় করেন না? উত্তরে ‘বিয়ের ফুল’খ্যাত এই অভিনেতা হলেন, ‘কারণ দেখাতে হলে অনেক কথা বলতে হয়।

আপনারা জানেন, এক সময় সিনেমা ছিল বাংলাদেশে বিনোদনের সবচেয়ে বড় একটি মাধ্যম। কিন্তু এমন একটা সময় এলো, যখন সিনেমা নিয়ে মানুষের খারাপ ধারনা তৈরি হলো ও নির্মাণের মান খারাপ হলো।

ঠিক তখনই আমি পেছনে চলে গেলাম। কারণ, আমি সবসময় চেয়েছি মানুষের কাছে সুন্দর কিছু উপস্থাপন করতে। চিন্তা ছিল সুন্দর ও ভালো কাজ উপহার দেওয়ার। ’সিনেমায় ফেরা প্রসঙ্গে শাকিল খান বলেন, ‘এখনো যে ভালো কিছু উপহার দেওয়ার ইচ্ছা নেই, বিষয়টি তা নয়।

সামনে ভালো কিছু এলে চিন্তাভাবনা করবো। তবে জানি না সেটা কখন। অপেক্ষায় থাকতে হবে। ’ ব্যবসায় স্ত্রীকে উৎসাহ দিয়ে এই তারকা বলেন, ‘আমি মনে করি সবার কিছু না কিছু করা দরকার। ওকে (স্ত্রী) নিয়ে আমি গর্ববোধ করি।

অনেকে আমাকে বলেন ‘ভাবি কাজ করেন’-তাতে কী? আমি মনে করি এখন সকল নারীদের কাজ করার উচিৎ। তারা কাজ করলে দেশ এগিয়ে যাবে। পরিবার নিয়ে যাতে ভালো থাকতে পারি সবাই সেই দোয়া করবেন। ’

পরিবারকে নিয়ে অবসর কাটাতে কক্সবাজারে গিয়েছেন শাকিল খান। সমুদ্রের পার থেকে সস্ত্রীক ফেসবুক লাইভে যুক্ত হন তিনি।ব্যবসার পাশাপাশি সামাজিক কর্মকাণ্ডে যুক্ত রয়েছেন শাকিল খান। চট্টগ্রামে পাবলিক হাসপাতাল নামে একটি ক্লিনিক স্থাপন করেছেন তিনি, যেখানে দুঃস্থদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়। এ ছাড়া গাজীপুরে বয়স্ক পুনর্বাসন কেন্দ্র নিয়েও কাজ করছেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *