আমার মায়ের খুব ক’ষ্ট, মাকে বাঁ’চাতে দুটি শিশুর করুন আকুতি

আমার মা’কে আপনারা দয়া করে বাঁ”চান, আমার মায়ের খুব ক’ষ্ট! আমার মা সারা’দিন খালি আমাদের দুই ভাই’কে জ’ড়িয়ে ধরে কাঁ’দে, ঠি’কমত কিছু খায়না। আর থাকি থাকি প্রচন্ড য’ন্ত্রনায় মা’টিতে গ’ড়াগড়ি করে।

মাসুম ছেলে হোসাইন এখনও ঠিকমত ক’থা বলতে না পার’লেও ছো’ট ভাইকে কো’লে নি’য়ে অঝোরে কাঁ’দতে কাঁ’দতে কথা’গুলো বলেন অসু’স্থ আ’য়শা বে’গমের ব’ড় ছে’লে জাহিদ হাসান।

বলছি কুড়ি’গ্রামের নাগে’শ্বরী উপ’জেলার ম’ন্নেয়ার পাড় গ্রা’মের অসু’স্থ আয়’শার কথা। আ’য়শা বেগম দু’রারো’গ্য ব্যা’ধি (ফেব’রো’য়িড ইউট্রাস) রো’গে আক্রা’ন্ত। রো’গটি স্প’র্শকাতর ও অ’তি বি’পদজনক জা’য়গায় হওয়ায় ডা’ক্তার আজ থেকে ১ বছর আগে আ’য়শাকে অ;পারেশন করতে বলেন।

ডাক্তার আরও আশংকা প্র’কাশ করে বলে অ;পারেশন না করতে পারলে তার রো’গটা ক্যা’ন্সারে রু’প নি’তে পারে। অ;পারেশন এবং অ;পারেশন প’রবর্তী ও’ষুধের জন্য প্রায় ৬০ হাজা’র টাকা লা’গবে বলে জানায়।

কিন্তু যেখানে দ’রিদ্র আয়’শার স্বা’মী দু’বেলা দু-মুঠো ভাত জো’গাড় করতেই হি’মসিম খায় সে’খানে ৬০ হা’জার টাকা যো’গাড় করা প্রা’য় স্ব’প্নের ম’তোই ব্যা’পার। তাই অসহা’য়’ত্বকে পুঁ’জি করে আল্লা’হপা’কের উ’পর সব ছে’ড়ে দিয়ে নি’রবে নি’ভৃতে কাঁ’দা ছাড়া আর কি ই বা করতে পারে আ’য়শার পরিবার।

উল্লেখ্য চলতি মাসের ৮ তারিখে ‘দুটি ছোট বা’চ্চার জন্য মায়ের বাঁচার আকুতি!’ শিরোনামে সময়ের কন্ঠ’স্বরে খবর প্রকাশ হয়। খবর প্রকাশের পরে তার জন্য কেউই এগিয়ে আসেনি। এ খবরটি আয়শাকে দিলে আজ শনিবার ১৩/০২/২১ প্রচন্ড কা’ন্নায় ভে’ঙ্গে প’ড়েন অ’সুস্থ আ’য়শা বেগম।

আয়’শার দুই শি’শু জাহিদ হাসান ও হোসাইন । এর মধ্যে বড় ছে’লে জাহিদ হাসানের এ প্রতিবে’দকের সাথে কথা’ হলে সে অ’ঝরে কাঁ’দতে কাঁ’দতে বলেন, আমাদের মা’কে আ’পনারা বাঁ’চান।

আমাদের মা সারা’দিন মন খারাপ করি থাকে, খা’লি কাঁ’দে, ব্যা’থায় চিৎকা’র করে, ঠিকম’তো কথা বলে না কিছু খেতে পারে না। তিব্র ব্যাথায় মা’টিতে গ’ড়াগড়ি করে। আপনারা আ’মাদের মা’কে বাঁ’চান।

কথা হলে আয়’শা বে’গম এ প্রত’বেদককে বলে’ন, মু’ই বাঁ’চার আশা ছা’ড়ি দিচং! প্রচ’ন্ড পে’ট ব্যা’থা,ত’লপেট খচা’খচি করা, আজগু’বি পু’রো শ’রীরে তা’প ওঠা,হঠাৎ করে মুখ ফুলে যাওয়ার কারণে সারাদিন চরম ক’ষ্টে থাকি। এখন ক’য়েকদিন থাকি বেশি হইছে।

স’হ্য কর’বের পাংনা। এতো ক’ষ্টের চেয়ে’ মো’র ম’রণ ভা’লো! তি’নি আরও প্র’শ্ন ছু’ড়ে দি’য়ে বলেন মুই মর’লে মো’র অ’বুঝ ছও’য়া(বা’চ্চা) দুই টা’র কি হবে ?? ছ’ওয়া (বা’চ্চা) দুই”টার জ’ন্য ‘বাঁ’চপার চাং। তো’মরা দ’য়া ক’রি মো’ক বাঁ’চান। সবা’র কাছে অনুরোধ মো’ক তো’মরা সা’হায্য ক’রো। মুই মর’লে মো’র মাসুম বা’চ্চা দুইটা যে এ’তিম হবে !

প্রতিবে’দকের দু’টি কথাঃ আমি অসুস্থ আয়শা ও তার ছেলের করুন আকু’তি শুনে তার অ;পারেশন করানোর চেষ্টা কর’ছি। আমি নিজেই দেশ বিদে’শের সকল হৃ’দয়বান বি’ত্তবান মানুষের সহযো’গিতা নিয়ে আয়শা বেগমের অপা;রেশনটা করাতে ‘চাই।

আয়শা বে’গম প্রায় প্রতি’দিন আমার বাড়ি’তে এসে খুব কা’ন্না’কাটি ‘করে। তাই মা’সুম বাচ্চাদু’টোর মাকে বাঁ’চাতে আসু’ন যে যার অবস্থান থেকে সামর্থমত এগি’য়ে আসি। জ’য় হোক মানব’তার, শিশুদুটো ফিরে পাক তাদের সুস্থ মাকে।

আয়শার পাশে দাড়াতে তার ব্যাক্তিগত হিসাব নং- ২০৫০৭৭৭০২৮৩৪৪৮৯০৭, হিসাবের নাম- আয়শা বেগম, ব্যাংকের নাম- ইসলামী ব্যাংক, (এজেন্ট ব্যাংকিং) কুড়িগ্রামআরও তথ্য ও ভিডিও কলে আয়শার সাথে কথা বলতে আমাদের স্টাফ রিপোর্টার প্রভাষক , ফয়সাল শামীম-০১৭১৩২০০০৯১।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *