মুসলিম মেয়ে হিসেবে সংসারটা আগলে রাখতে চেয়েছি কিন্তু পারিনি: শাবনূর

স্বামী অনিক মাহমুদ হৃদয়ের সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় গত ২৩ জানুয়ারি অনিককে তালাক দিয়েছেন এক সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শাবনূর।

নায়িকার সই করা নোটিশটি এডভোকেট কাওসার আহমেদের মাধ্যমে গত ৪ ফেব্রুয়ারি অনিকের উত্তরা এবং গাজীপুরের বাসার ঠিকানায় পাঠানো হয়েছে। আইনগতভাবে ৯০ দিন পর তাদের এই তালাক কার্যকর হবে।

ডিভোর্সের ব্যাপারে আজ বুধবার (৪ মার্চ) দেশের একটি দৈনিকের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়া থেকে কথা বলেছেন শাবনূর। ডিভোর্সের সত্যতা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘হ্যা, আমি ডিভোর্স লেটার পাঠিয়েছি অনিককে। আসলে আমার কিছু করার নেই। দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে।’

এই অভিনেত্রী আরও বলেন, ‘আইজান জন্মানোর পর থেকেই আসলে আমাদের সম্পর্কটা নষ্ট হয়ে গেছে। প্রায় ছয়টা বছর নিরবে তার অত্যাচার সহ্য করেছি। চেয়েছি মুসলিম মেয়ে, সংসারটা আগলে রাখবো। পারিনি।

অনেক আগে থেকেই আমরা আলাদা থাকছি। দফায় দফায় বিষয়টি মিটমাট করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছি। বাধ্য হয়েই ২৬ জানুয়ারি অনিককে ডিভোর্স নোটিশ পাঠিয়েছি।’

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ২৮ ডিসেম্বর অনিক মাহমুদ হৃদয়ের সঙ্গে বিয়ে হয় শাবনূরের। সেই সংসারে ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর আইজান নিহান নামে এক পুত্রসন্তানের জন্ম হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *