Breaking News
Home / রাজনীতি / মাদ্রাসা থেকে যেভাবে মামুনুল হককে গ্রে’প্তার করা হয়

মাদ্রাসা থেকে যেভাবে মামুনুল হককে গ্রে’প্তার করা হয়

Advertisement

হেফাজতে ই’সলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সেক্রেটারি মাওলানা মামুনুল হককে গ্রে’প্তার করেছে ঢাকা মহানগর গো’য়েন্দা পু’লিশ-ডিবি। রোববার (১৮ এপ্রিল) মোহাম্ম’দপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মা’দ্রাসা থেকে তাকে গ্রে’প্তার করা হয়।

Advertisement

গত ২৬ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বি’রোধিতা করে বি’ক্ষোভ করে হেফাজতে ই’সলাম। মোদির বি’রোধিতায় প্রথমে ঢাকায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের সামনে বি’ক্ষোভে স’হিংসতা হয়, তার জে’রে চট্টগ্রামের হাটহাজারী ও ব্রাহ্ম’ণবাড়িয়ায় প্রা’ণঘা’তী সংঘা’ত হয়।

যার জে’রে ২৮ মার্চ হরতাল ডাকে হেফাজত, ওই হরতালকে ঘি’রে চরম নেতিবাচক পরিস্থিতি তৈরি হয় সারাদেশে।

এরপর গত ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজে’লার রয়েল রিসোর্টে হেফাজতে ইস’লামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে ‘ঘে’রাও’ করার ঘ’টনা ঘ’টে।

এ ঘ’টনায় ছ’ড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে বলতে শোনা যায়, মামুনুল এক না’রীসহ আ’টক হয়েছেন। যদিও ওই না’রীকে নিজের স্ত্রী বলে দা’বি করেছেন মামুনুল হক। ওইদিন সন্ধ্যায় রিসোর্ট থেকে তাকে ছাড়িয়ে স্থানীয় একটি মস’জিদে নিয়ে যান হেফাজত নেতাকর্মীরা।

মা’মলায় সরকারি কাজে বা’ধা, পু’লিশের ওপর হা’মলা ও রিসোর্টে ভা’ঙচুরের অ’ভিযোগ এনে ৪১ জনের নাম উল্লেখ করা হয় এবং অ’জ্ঞাত ২৫০-৩০০ জনকে আ’সামি করা হয়। মা’মলায় প্র’ধান আ’সামি করা হয়েছে হেফাজতে ই’সলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে।

তেজগাঁও বিভাগের উপ কমিশনার (ডিসি) হারুন-অর-রশিদ মামুনুল হককে গ্রে’প্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ‘গো’য়েন্দা পু’লিশের একাধিক টিম যৌথ অ’ভিযানে মামুনুল হককে গ্রে’প্তার করেছে। গ্রে’প্তারের পর তাকে মিন্টো রোডের গো’য়েন্দা কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

আপাতত মোহাম্ম’দপুর থা’নার মা’মলায় তাকে গ্রে’প্তার দেখানো হয়েছে। অন্য মা’মলার বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’ সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত ৩ এপ্রিল সোনারগাঁওয়ের রয়েল রিসোর্টকাণ্ডের পর থেকেই মোহাম্ম’দপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসায় অবস্থান করছিলেন মামুনুল হক।

ঘ’টনার পর থেকেই পু’লিশ তাকে নজরদারির মধ্যে রেখেছিল। গো’য়েন্দা পু’লিশের কর্মক’র্তারা জানান, মামুনুল হক ওই মাদ্রাসার দ্বিতীয় তলার একটি কক্ষে অবস্থান করছিলেন। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে গো’য়েন্দা পু’লিশ ও তেজগাঁও বিভাগের শতাধিক পু’লিশ প্রথমে ওই মা’দ্রাসাটা ঘি’রে ফেলে।

এ সময় মাদ্রাসার ভেতরে দেড় শতাধিক শিক্ষক ও শিক্ষার্থী অবস্থান করছিলেন। পু’লিশের অ’ভিযানে প্রথমে তারা

বাঁ’ধা দেওয়ার চে’ষ্টা করলেও অতিরিক্ত পু’লিশ দেখে হাল ছেড়ে দেন। পরে মামুনুল হককে দোতালার ওই কক্ষ থেকে নিয়ে একটি মাইক্রোবাসে তোলা হয়।

প্রথমে তাকে মিরপুর সড়কে পু’লিশের তেজগাঁও ডিভিশনের ডিসি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তাকে মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

Advertisement

Check Also

হেফাজতের ভাঙ্গন প্রক্রিয়া চূড়ান্ত: মামুনুল-বাবুনগরীর বিদায়!

Advertisement সাম্প্রতি সময়ের কর্মকাণ্ডের জন্য হেফাজতকে কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে পরতে হয়েছে। সারাদেশে নাশকতা ও নৈরাজ্য …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *