গাছের মগডালে তু;মুল ল;ড়াই করছে দুটি বি;শাল সা;প, ঘটল বিপত্তি, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন এর মতে বিশ্বে প্রায় তিন হাজার প্রজাতির সা;প রয়েছে। তাদের মধ্যে প্রায় ৬০০ টি প্রজাতির সা;প বি-ষাক্ত। সারা বিশ্বজুড়ে প্রতি বছর আনুমানিক ৫৪ লক্ষ মানুষ সা;পের কাম-ড়ে আক্রান্ত হয়।

সা;পের কা-মড়ের কারণে প্রতিবছর প্রায় ৮১,০০০ থেকে ১,৩৩,০০০ মানুষ মা-রা যায় এদের মধ্যে বেশিরভাগ আফ্রিকা, এশিয়া এবং লাতিন আমেরিকার বাসিন্দা।আফ্রিকার সবচেয়ে বিপ-জ্জ-নক ও ভ-য়ং-কর সা;প হলো ব্ল্যাক মাম্বা।

আকৃতির দিক থেকে ব্ল্যাক মাম্বা আফ্রিকার সর্ববৃহৎ এবং বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিষধর সা;প রূপে চিহ্নিত। কোন রকম ভাবে আক্রমণের শি;কার হলে এই ;;সা;প মা-রণ দংশন দিতেও দ্বিধাবোধ করে না।

ব্ল্যাক মাম্বার থেকে বড় পৃথিবীর একমাত্র প্রজাতির বি-ষধ-র সা;পটির নাম শ-ঙ্খচূ-ড় বা কিং কো-বরা। ব্ল্যাক মাম্বা তাদের ব্যক্তিগত প্রতিরক্ষায় সতর্ক এবং আক্রমণাত্মক।

ব্ল্যাক মাম্বা নামক সা;পটির ত্বকের সত্যিকারের রং কালো নয়, বরং গাঢ় ধূসর জলপাই রংয়ের। এই সা;পের মুখের ভিতরের রং কালো। তাই এর নাম দেওয়া হয়েছে ব্ল্যাক মাম্বা।

বয়স যত বৃদ্ধি পায় তত এই সা;পের দে;হের রং আরও গাঢ় হয়ে যায়। এদের মুখের ভেতরের অংশ ঘন কালো। ব্ল্যাক মাম্বা হলো পৃথিবীর সর্বাধিক দ্রুততম সা;প।

দৈর্ঘ্যে এই সা;প ১৪ ফুট পর্যন্ত হতে পারে। প্রতি ঘন্টা ১২ মাইলের বেশি গতিতে দৌড়াতে পারে এই সা;প। ব্ল্যাক মাম্বা সাধারণত দক্ষিণ এবং পূর্ব আফ্রিকার সভানা অরণ্যে এবং পাথুরে পাহাড়ে বসবাস করে।

ব্ল্যাক মাম্বা অ্যান্টিভেনিনের আবির্ভাবের আগে ব্ল্যাক মাম্বারকা কা-মড় প্রায় সর্বদা মা-রা-ত্ম-ক ছিল। প্রায় ২০ মিনিটের মধ্যে মৃ-ত্যু ঘটতো। ব্ল্যাক মাম্বা সাধারণত ৬ থেকে ২০ টি ডিম দেয়। এরা গাছের উপরেই ঘুমোতে ভালোবাসে।

স্নায়ুত-ন্ত্র এবং হৃ-দ-পি-ণ্ড কে আ-ক্র-ম-ণ করে থাকে ব্ল্যাক মাম্বার বি-ষ। বন্য অঞ্চলে ব্ল্যাক মাম্বা ১১ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। বন্দী অবস্থায় তাদের জীবনকাল ২০ বছরেরও বেশি হয়।

এবার গাছের উপরে চেপে থাকতে দেখা গেল এক ব্ল্যাক মাম্বাকে। “রিচ ম্যাককল” নামক একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে পোস্ট করা ভিডিওতে এমনি দেখা গিয়েছে। বিশালাকৃতির গাছের উপরে চেপে রয়েছে বিষধর ব্ল্যাক মাম্বা।

সামনে থাকা শি;কারকে বারবার ধরতে যাচ্ছে সে। কার্যত আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে শি;কারের দিকে তেড়ে যাচ্ছে। কিন্তু ভিডিওটি কোন স্থানের সে সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি। ১৩ মিলিয়ন মানুষ এরই মধ্যে ভিডিওটি দেখে নেওয়ার পাশাপাশি, ৩১ হাজার লাইক পড়েছে ভিডিওটিতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.